Loading...

ডেস্ক: ১০০ বছরের মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ বন্যা পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছিল কেরলে। সেই ধাক্কা এখনও সামলে উঠতে পারেনি ঈশ্বরের আপন দেশ। গোটা রাজ্য এখনও কার্যত ধ্বংসস্তূপ। বহু পরিবার এখনও দিন কাটাচ্ছে ত্রাণ শিবিরের আশ্রয়ে। গোদের উপর বিঁষফোড়া আবার মুখ্যমন্ত্রীর শারীরিক অবস্থা। রাজ্যে ভয়াবহ বন্যা পরিস্থিতির মধ্যেই মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়নকে চিকিৎসার জন্য পাড়ি দিতে হল মার্কিন মুলুকে।

রবিবার সকালেই চিকিৎসার জন্য আমেরিকা উড়ে গিয়েছেন বিজয়ন। প্রাথমিকভাবে জানা গিয়েছে টানা তিন সপ্তাহ চলবে তাঁর চিকিৎসা। তবে, ঠিক কবে তিনি ফিরবেন তা জানা নেই কারও। এমনকী মন্ত্রিসভায় তাঁর সহকর্মীরাও ঠিক জানেন না কবে ফিরবেন মুখ্যমন্ত্রী। সবচেয়ে বড় ব্যাপার আমেরিকা উড়ে যাওয়ার আগে বিপজ্জনক পরিস্থিতিতে কাউকে তাঁর্ দায়িত্বও বুঝিয়ে দিয়ে যাননি পিনারাই বিজয়ন। মুখ্যমন্ত্রীর দপ্তর থেকে সরকারিভাবে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে বিজয়নের উপস্থিতি কোনও ‘সেকেন্ড ইন কম্যান্ড’-এর উপর দায়িত্বে দিয়ে যাওয়া হয়নি। মুখ্যমন্ত্রীর এহেন হটকারিতায় রীতিমতো স্তম্ভিত রাজনৈতিক মহল। কারণ তাঁর অনুপস্থিতি মন্ত্রিসভার বৈঠকে কে নেতৃত্ব করবেন কারও জানা নেই। এ হেন বিপজ্জনক পরিস্থিতিতে কোনও গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেওয়ার হলে সেটাই বা কোনও মন্ত্রী নেবেন তাও উল্লেখ করা হয়নি। এ বিষয়ে রাজ্যের শিল্পমন্ত্রী  ই পি জয়নারাণ জানিয়েছেন, মন্ত্রিসভার বৈঠকের আগেই ঠিক হবে কে নেতৃত্ব দেবেন বৈঠকে।

মুখ্যমন্ত্রীর দপ্তর থেকে বিবৃতি জারি করে বলা হয়েছে, বিজয়নের অনুপস্থিতিতে যদি কেউ মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে দান করতে চান, তাহলে তিনি স্বচ্ছন্দে তা করতে পারেন। ত্রাণ গ্রহণ করবেন শিল্পমন্ত্রী জয়নারায়ণই। কেরলের শিল্পমন্ত্রীর দাবি, “মুখ্যমন্ত্রী অনুপস্থিত থাকলেও মন্ত্রীরা সবাই নিজ নিজ দপ্তরের কাজ সামলাচ্ছেন। তাই রাজ্যের প্রশাসনিক কোনওরকম অসুবিধা হবে না। প্রয়োজনে বড় কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রে আমরা মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে যোগাযোগ করে নেব।”

Loading...