Loading...

ডেস্কঃ অসমের শিলচর বিমানবন্দরে তৃণমূলের প্রতিনিধিদের প্রশাসনিক বাধাদান নিয়ে কড়া প্রতিক্রিয়া দিলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। বৃহস্পতিবার জি ২৪ ঘণ্টাকে ফোনে দিলীপ ঘোষ বলেন, অসমে অনভিপ্রেত তৃণমূলের সাংসদ বিধায়করা। তাই তাঁদের আটকানো হয়েছে।

জাতীয় নাগরিকপঞ্জির খসড়া তালিকা প্রকাশের পর থেকেই সুর চড়িয়েছে তৃণমূল। তৃণমূলের অভিযোগ, NRC-র নামে অসম থেকে বাঙালিদের তাড়ানোর ষড়যন্ত্র করছে বিজেপি। এই নিয়ে গত মঙ্গলবার দিল্লিতেও সরব হন মমতা। বৃহস্পতিবার অসমের কাছাড় জেলায় প্রতিনিধিদল পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয় তৃণমূলের। সেখানে এক সভায় যোগদানের কথা ছিল তৃণমূলের প্রতিনিদের। কিন্তু গোটা জেলায় ১৪৪ ধারা জারি থাকায় শেষ পর্যন্ত সভা বাতিল করা হয়।

বৃহস্পতিবার বেলা ১.৩০ মিনিট নাগাদ তৃণমূলের প্রতিনিধিরা দিল্লি থেকে বিমানে শিলচর বিমানবন্দরে পৌঁছন। প্রতিনিধি দলের নেতৃত্বে ছিলেন বিজেপির রাজ্যসভার মুখ্য সচেতক সুখেন্দুশেখর রায়। এছাড়া দলে ছিলেন রাজ্যসভার সাংসদ নাদিমুল হক, লোকসভার সাংসদ কাকলি ঘোষ দস্তিদার, রত্না দে নাগ, মমতা ঠাকুর ও অর্পিতা ঘোষ। ছিলেন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম ও বিধায়ক মহুয়া মিত্র। অভিযোগ, বিমানবন্দরে পৌঁছতেই তৃণমূলের প্রতিনিধিদের আটকায় পুলিস। তাঁদের শারীরিক হেনস্থা করা হয় বলেও অভিযোগ। ১৪৪ ধারার কারণ দর্শিয়ে তাঁদের বিমানবন্দরের বাইরেও বেরোতে দেওয়া হয়নি।

এই নিয়ে বিজেপির বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দেন তৃণমূলের প্রতিনিধি দলের সদস্যরা। ফোনে তাঁদের অসহায়তার কথা বলেন সুখেন্দুশেখর রায় ও কাকলি ঘোষ দস্তিদার। বিজেপি বিরোধীদের প্রতি দমনমূলক নীতি প্রয়োগ করছে বলে অভিযোগ তাঁদের। যদিও এ সবই উড়িয়ে দিয়েছেন দিলীপবাবু।

দিলীপ ঘোষের কথায়, ‘অসমে ওরা অনভিপ্রেত। ওদের ওখানে যেতে কে বলেছে। NRC নিয়ে অসমে কোনও গোলমাল নেই। অথচ পশ্চিমবঙ্গে তোলপাড় চলছে। স্বাভাবিক ভাবেই ১৪৪ ধারা জারি থাকায় ওদের রাজ্যে ঢুকতে দেয়নি প্রশাসন।’ এর পরই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে বিঁধে দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘যাঁদের দলের নেত্রী বলেন গৃহযুদ্ধ বাঁধবে। তাদের বিশ্বাস করে ঢুকতে দেবে কে?’ দিলীপ ঘোষের অভিযোগ, ‘বসিরহাট দাঙ্গার সময় সাংসদ রূপা গঙ্গোপাধ্যায়কে সেখানে ঢুকতে দেয়নি প্রশাসন। রাজ্যের বিধায়ক হলেও ধূলাগড়ে ঢুকতে দেওয়া হয়নি আমাকে। সেই সময় গণতন্ত্রের কথা মনে পড়েনি?’

অসমের অনুকরণে পশ্চিমবঙ্গে নাগরিক পঞ্জি চালুর দাবিতে বৃহস্পতিবার দক্ষিণ কলকাতার দেশপ্রিয় পার্ক থেকে হাজরা মোড় পর্যন্ত মিছিল করে বিজেপি। বিজেপির যুব ও মহিলা মোর্চা আয়োজিত এই কর্মসূচিতে মহিলা মোর্চার নেত্রী লকেট চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘ক্ষমতায় এলে পশ্চিমবঙ্গ থেকে অনুপ্রবেশকারীদের তাড়িয়ে ছাড়বে বিজেপি।’

Loading...