Loading...

দুর্গাপুরঃ কলকাতার পর এবার দুর্গাপুরে। বেসরকারি কলেজে টাকার বিনিময়ে ভর্তির অভিযোগ উঠল তৃণমূল ছাত্র পরিষদের এক সদস্যের বিরুদ্ধে। ঘটনা দুর্গাপুরের মাইকেল মধুসূদন মেমোরিয়াল কলেজের।

প্রথম বর্ষের এক ছাত্রের সঙ্গে হোয়াটসঅ্যাপে ভর্তি ও টাকা সংক্রান্ত কথপোকথনের সেই তথ্য সংবাদমাধ্যমের হাতে এসেছে। জানা গেছে, বিনয় লোহানি নামে এক পড়ুয়া মাইকেন মধুসূদন কলেজে ভর্তির জন্য ছাত্র পরিষদের এক সদস্য রমজান খানের সঙ্গে যোগাযোগ করে। পড়ুয়ার অভিযোগ, রমজান খান নামে ওই যুবক তাকে জানায়, আড়াই হাজার টাকা দিয়ে অনলাইনে ভর্তি হয়ে যাওয়ার পর নগদ ৭ হাজার টাকা দিতে পারলে তার কলেজে ভর্তি হয়ে যাবে।

এরপর ওই পড়ুয়া সাংবাদিকদের সঙ্গে যোগাযোগ করে। সোমবার টাকা দেওয়ার দিন কলেজ চত্বরেই ওই যুবক অভিযুক্ত রমজান খানের হাতে টাকা দিতে গেলে সাংবাদিকদের কাছে হাতেনাতে ধরা পড়ে যায় সে। তার কাছ থেকে নগদ ৭ হাজার টাকা আটক করা হয়েছে। খবর পেয়ে সিটি সেন্টার ফাঁড়ির পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলেও তাদের ভূমিকা ছিল নীরব দর্শকের।

এখানে প্রশ্ন হল, রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী যখন কলেজে ভর্তিকে কেন্দ্র করে তোলাবাজির বিরোধিতায় সরব হয়েছেন। বিভিন্ন কলেজগুলিতে কড়া নজরদারি রাখার নির্দেশ দিয়েছেন, সেখানে কী করে শাসকদলের ছাত্র পরিষদের লোকেরা পড়ুয়াদের কাছ থেকে ভর্তির নামে তোলা তুলছে? তাহলে সবটাই ফাঁকা আওয়াজ? নাকি এর পেছনেও রয়েছে বিরোধীদের কোনও চক্রান্ত।

সাংবাদিকদের কাছে ধরা পড়ার পর অভিযুক্ত ওই যুবকের বয়ানে সেই চক্রান্তেরই অভিযোগ উঠে এল। মাইকেল মধুসূদন কলেজে শাসকদলের ছাত্র পরিষদের বিরুদ্ধে এহেন অভিযোগের বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে মহকুমাশাসকের দ্বারস্থ হয়। তথ্য: এই বাংলায়

Loading...